Monday, September 23, 2019
Home > অান্তর্জাতিক > জাতিসংঘ মহাসচিব ও বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ব্যস্ত সময় পার করছেন

জাতিসংঘ মহাসচিব ও বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ব্যস্ত সময় পার করছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক :
ঢাকা: রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানের উপায় খুঁজতে ঢাকায় পৌঁছেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। শনিবার দিবাগত রাত ২টার কিছুক্ষণ পর তিনি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামেন।
বিমানবন্দরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী জাতিসংঘ মহাসচিবকে অভ্যর্থনা জানান।
এর আগে জাতিসংঘ শরণার্থীবিষয়ক সংস্থার প্রধান হিসেবে ২০০৮ সালের ২৭ মে গুতেরেস বাংলাদেশ সফর করেন।
এর আগে ঢাকায় পৌঁছান বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম। বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম সকালে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন। তারা দুজনই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে রবিবার বেলা ১১টায় সাক্ষাৎ করবেন বলে এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আয়োজিত টেকসই উন্নয়ন এজেন্ডা নিয়ে অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন জাতিসংঘ মহাসচিব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এতে উপস্থিত থাকবেন।
জাতিসংঘ মহাসচিব রাজধানীর ধানম-িতে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন করবেন। এ ছাড়া তেজগাঁওয়ে হলিক্রস উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে তার যাওয়ার কথা রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।
সন্ধ্যায় র‌্যাডিসনে গুতেরেস জাতিসংঘ বাংলাদেশ কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। একই হোটেলে তিনি জাতিসংঘ ও বিশ্বব্যাংক কর্মকর্তাদের সঙ্গে মিলিত হবেন।
এরপর সোনারগাঁও হোটেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আয়োজিত নৈশভোজে যোগ দেবেন গুতেরেস।
সোমবার বিমানে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে যাবেন জাতিসংঘ মহাসচিব। তার সঙ্গে থাকবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী, বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্ট, জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক হাইকমিশনার ফিলিপো গ্রান্ডি।
সোমবার সকালে কক্সবাজারের হোটেল সায়েমানে সাংবাদিকদের ব্রিফ করবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী।
জাতিসংঘপ্রধান কুতুপালংয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্প এবং নারীবান্ধব শিবিরে যাবেন। এরপর তিনি ঢাকায় পৌঁছাবেন সোমবার সন্ধ্যা ৬টায় এবং র‌্যাডিসন হোটেলে সাংবাদিকদের ব্রিফ করবেন সন্ধ্যা সোয়া ৭টায়। এদিন দিবাগত রাতেই ঢাকা ছাড়বেন গুতেরেস।
প্রসঙ্গত, গত বছরের ২৫ আগস্ট মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যে অভিযান শুরু করে মায়ানমারের সামরিক বাহিনী। অভিযানের পর থেকে গণহত্যা, ধর্ষণ, নির্যাতন ও উচ্ছেদের শিকার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এ পর্যন্ত সাত লক্ষাধিক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে।
বিভিন্ন সময় জাতিসংঘ বলেছে, রোহিঙ্গাদের ওপর জাতিগত নিধন চালাচ্ছে মায়ানমারের সেনবাহিনী। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশ সেনা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *