Sunday, January 17, 2021
Home > খেলাধূলা > এশিয়া কাপের ফাইনালে বাংলাদেশ

এশিয়া কাপের ফাইনালে বাংলাদেশ

ক্রীড়া ডেস্ক :
ঢাকা, ২৭ সেপ্টেম্বর : এশিয়া কাপের সুপার ফোরে পাকিস্তানকে হারিয়ে তৃতীয়বারের মতো ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ। বুধবার রাতে মুস্তাফিজের বোলিং জাদুতে পাকিস্তানকে ৩৭ রানে হারিয়েছে টাইগাররা। মুস্তাফিজ ৪টি, মেহেদি হাসান মিরাজ ২টি, রুবেল, মাহমুদুল্লাহ ও সৌম্য একটি করে উইকেট নেন। ২৮ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) এশিয়া কাপের ফাইনালে ভারতের মোকাবেলা করবে বাংলাদেশ।
বাংলাদেশের সামনে সুযোগ ছিল ফাইনালে যাওয়ার। আবুধাবিতে চলমান এশিয়া কাপের পাকিস্তানের বিপক্ষে অঘোষিত সেমিফাইনালে সেই সুযোগকে বাস্তব রূপ দিল টাইগাররা। মাঠে উপস্থিত হাজার দশেক প্রবাসী প্রিয় দলের জয় প্রাণভরে উপভোগ করেছেন।
মুশফিকুর রহিম ও মোহাম্মদ মিথুনের ব্যাটে ভর করে এশিয়া কাপের সুপার ফোরের ম্যাচে পাকিস্তানকে ২৪০ রানের টার্গেট দেয় বাংলাদেশ। ২৪০ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই পাকিস্তানকে চেপে ধরে মাশরাফি বাহিনী। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২০২ রান করে পাকিস্তান। ফলে ৩৭ রানের জয় নিয়ে ১৪ তম এশিয়া কাপের ফাইনাল নিশ্চিত করে বাংলাদেশ।
টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। মাত্র ১২ রানে নেই তিন উইকেট। এরপর মুশফিক (৯৯ রান) ও মিথুনের (৬০ রান) দারুণ ব্যাটিং ও পরে বোলারদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে মনে রাখার মতো জয়টা তুলে নেয় বাংলাদেশ। অসাধারণ বোলিং করেছেন মুস্তাফিজ। ৪৩ রানে ৪ উইকেট নিয়ে পাকিস্তান ব্যাটিংয়ে ধ্বস নামান তিনি। গত ম্যাচেও কাটার বয়ের কারণে শেষ ওভারের নাটক জিতেছিল বাংলাদেশ।
২৪০ রানের টার্গেট ছিল পাকিস্তানের সামনে। তেমন বড় টার্গেট নয়। তবে এই রানই যে তাদের জন্য এতটা কঠিন হয়ে উঠবে, ভাবা যায়নি।
মিরাজের হাত ধরে শুরুতেই উইকেট পেয়ে উজ্জ্বিবিত হয়ে ওঠে দল। মিরাজ ১ রানে ফেরান ফকর জামানকে। এরপর জ্বলে ওঠেন মুস্তাফিজুর রহমান। দারুণ স্পেল, পরপর দুই উইকেট। বাবর আজমকে ১ রানে এলবির ফাঁদে ফেলেন কাটার বয়। মুস্তাফিজের পরের শিকার সরফরাজ আহমেদ।
তবে তাতে বড় অবদান উইকেট কিপার মুশফিকের রহিমের। এবং যেভাবে তিনি পড়ে গিয়েছিলেন তাতে ভয়ের কারণই ছিল। উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়েছিলেন সরফরাজ। ক্যাচটি সহজ ছিল না। ঝাপিয়ে পড়ে দুই হাতে বল তালুবন্দি করেন মুশি। তিনি এমনভাবে পড়ে ক্যাচটি ধরেছিলেন যে, শরীরের পুরো ভর পড়েছিল বুক ও কোঁমরের উপর।তিনি হয়তো একটু ব্যথাও পেয়েছিলেন।
মাত্র ১৮ রানে তিন উইকেট ফেলে দিয়ে জয়ের স্বপ্ন দেখা শুরু করে দেয় টাইগাররা। কিন্তু চতুর্থ উইকেটে ইমামুল হক ও শোয়েব মালিক দৃঢতা দেখান। বড় পার্টনারশিপের দিকে যাচ্ছিলেন তারা। ৬৭ রান যোগ করার পর রুবেলের বলে মাশরাফির অসাধারণ ক্যাচে পরিণিত হন শোয়েব।
এর কিছু পর শাদাব খানকে ৪ রানে স্লো মিডিয়াম পেসে বিদায় করেন সৌম্য সরকার। ৯৪ রানে ৫ উইকেট নেই পাকিস্তানের। ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ বাংলাদেশর হাতে। তবে এখান থেকে দলকে টেনে নিতে থাকেন বিপজ্জনক ইমামুল হক। তিনি এমন এক ব্যাটসম্যান যিনি একাই ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিতে জানেন। তাকে সঙ্গ দেন আসিফ আলী। অবশ্য ২২ রানের মাথায় ফিরতে পারতেন এই আসিফ। কিন্তু মুস্তাফিজের বলে ক্যাচ ছাড়েন মুশফিকের জায়গায় কিপিং করা লিটন দাস। অবশেষে সেই আসিফকে মিরাজের বলে আসিফকে ৩১ রানে স্ট্যাম্প করেন লিটন। ৭২১ রানের জুটি ভাঙার পর স্বস্তি ফিরে বাংলাদেশ শিবিরে।
সেই স্বস্তি আনন্দে রূপ নেয় যখন ৮৩ রানে ইমামুল হককে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের বলে ত্বরিৎ স্ট্যাম্পিং করেন লিটন। জয় তখন সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। গ্যালারিতে বাংলাদেশি সমর্থকদের উল্লাস শুরু হয়ে যায়। এরপর হাসান আলীকে ৮ রানে মুস্তাফিজ বিদায় করেন। মোহাম্মদ নেওয়াজকেও ৮ রানে বিদায় করেন মুস্তাফিজ। ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে পাকিস্তান থামে ২০২ রানে। মুস্তাফিজ ছাড়াও ভালো বল করেছেন অন্য সবাই। ২ উইকেট নেন মিরাজ। একটি করে পান রুবেল, সৌম্য ও রিয়াদ।
এরআগে টসে জিতে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। মুশফিকের ৯৯ ও মিথুনের ৬০ রানের কল্যাণে ৪৮.৫ ওভারে ২৩৯ রান তুলে বাংলাদেশ। শুরুটা জঘন্য হয়েছিল। নাজমুল হাসান শান্তকে বাদ দিয়ে সৌম্য সরকারকে একাদশে নিয়েও লাভ হয়নি। ৫ বলে ০ রানে ফিরে গিয়ে আবারও প্রমাণ করলেন আপাতত আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার অবস্থায় নাই তিনি। গত সাত ওয়ানডেতে তার ব্যাট থেকে এসেছে ০, ২৮, ৩, ৩, ০, ৮, ০। সৌম্যর অফ ভয়াবহ অফ ফর্ম অন্য দুই ফরম্যাটেও।
সাকিবের জায়গায় সুযোগ পাওয়া মুমিনুল হক দারুণ চার মেরেছিলেন শুরুতেই। ভালো করার ঘোষণা ছিল ওই চারে। কিন্তু পরক্ষণেই বোল্ড হয়ে যান তিনি। লিটন এক ইনিংস একদিন ভালো করেন তো, ৫/৭ ইনিংসে রান নেই। গত ম্যাচে ৪২ রান করা লিটন এদিন থামেন ৬ রানে। মহা বিপর্যয়। ১২ রানে তিন উইকেট শেষ। ম্যাচের বারটা বাজিয়ে দিয়ে গেছেন তিন ব্যাটসম্যান।
এখান থেকে দলকে টেনে তুলা শুধু কঠিন নয়, খুবই কঠিন। তবে এমন কঠিন কাজ বহুবার করে দেখিয়েছেন মুশফিক। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে এমন পরিস্থিতিতে দলকে টেনে তুলেছিলেন ১৫০ বলে ১৪৪ রান করে।
সঙ্গে পেয়েছিলেন মোহাম্মদ মিথুনকে। মিথুন করেছিলেন লড়াকু ৬৩ রান। মুশফিক-তৃতীয় উইকেট জুটিতে এসেছিল রেকর্ড ১৩১। পাকিস্তানের বিপক্ষে এটাই চতুর্থ উইকেট জুটিতে সর্বোচ্চ রানের জুটি।
চরম বিপদে দলকে আবারও উদ্ধার করলেন এই জুটি। আজ চতুর্থ জুটিতে ১৪৪ রান যোগ করেন মুশফিক ও মিথুন। ৮৪ বলে ৬০ রান করার পর আউট হন মিথুন।
তবে মুশফিক তরতর করে এগিয়ে যাচ্ছিলেন মুশি। এগিয়ে যাচ্ছিলেন ৭ নম্বরে ওয়ানডে সেঞ্চুরির দিকে। কিন্তু এক ৯৯ রান করার (মুশফিকই একমাত্র বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান যিনি ১ রানের জন্য সেঞ্চুরি পেলেন না) পর শাহিন শাহ আফ্রিদির বলে ফিরতে হয় তাকে। ১ রানের আফসোস তো বটেই, দলও ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলো। মুশফিক উইকেট থাকলে স্কোরের চেহারা অন্যরকম হতে পারত।
গত ম্যাচে দারুণ খেলা ইমরুলকে এদিনও সাবলীল মনে হচ্ছিল। কিন্তু ১০ বলে ৯ করার তাকে ফিরতে হয় এলবি হয়ে। এরপর মিরাজ আউট হন ১২ বলে ১১ রান করে। দায়িত্ব নিয়ে খেলছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। কিস্তু তাকে বিদায় নিতে হয় ২৫ বলে ২১ রান করার পর। ১২ বলে ১৪ রান করে মাশরাফি আউট হয়ে গেলে ৭ বল বাকি থাকতেই ২৩৯ রানে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ। পাকিস্তানের জুনায়েদ খান মাত্র ২০ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন।

Like & Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *