Monday, September 23, 2019
Home > অান্তর্জাতিক > আমাজানের আগুনে ব্রাজিল ছাড়াও পুড়ছে আটটি দেশ

আমাজানের আগুনে ব্রাজিল ছাড়াও পুড়ছে আটটি দেশ

এপিপি বাংলা ডেক্স : আমাজানের দাবানলের আঁচ লেগেছে ব্রাজিল ছাড়াও আটটি দেশে। ভেনিজুয়েলা, বলিভিয়া, কলম্বিয়া, পেরু, গায়ানা, ইকুয়েডর, সুরিনাম এবং ফ্রেঞ্চ গিয়ানায় ছড়িয়ে থাকা বনের অংশ পুড়ছে তীব্র দাবানলে।

বিবিসির প্রতিবেদনে জানা যায়, চলতি বছর জানুয়ারি থেকে ২১ আগস্ট পর্যন্ত শুধু ব্রাজিলেই জঙ্গলে আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে ৭৫ হাজার। ব্রাজিলের পর দ্বিতীয় সর্বাধিক আগুনের ঘটনা ঘটেছে ভেনেজুয়েলায়।

সেখানে দাবানল হয়েছে ২৬ হাজার ৫০০টি। তৃতীয় স্থানে রয়েছে বলিভিয়া যেখানে আগুনের ঘটনা ঘটেছে ১৭ হাজার ২০০টির মতো।

কলম্বিয়ায় দাবানল হয়েছে ১৪ হাজার ২০০টির মতো, পেরুতে পাঁচ হাজার ৬৪০টির মতো, গায়ানায় ৮৯০, ইকুয়েডরে ২৯০, সুরিনামে ১৬০টি এবং ফ্রেঞ্চ গিয়ানায় ১১টি দাবানলের ঘটনা ঘটেছে এই আট মাসে।

বলিভিয়া সরকার দেশের পূর্বাঞ্চলে দাবানল নেভানোর কাজে সহায়তার জন্য একটি বিমানের মাধ্যমে অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র ভাড়া করেছে।

প্রায় ছয় বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে রয়েছে বলিভিয়ার বনাঞ্চল। ওই এলাকায় পাঠানো হয়েছে অতিরিক্ত কর্মী। আগুনের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য পশুপাখিদের জন্য অভয়ারণ্য তৈরি করা হচ্ছে।

ব্রাজিলে আমাজনের উষ্ণমণ্ডলীয় বনাঞ্চলে ২০১৯ সালে ব্রাজিলিয়ান স্পেস এজেন্সির তথ্য অনুযায়ী রেকর্ডসংখ্যক দাবানলের ঘটনা ঘটেছে।

দ্য ন্যাশানাল ইন্সটিটিউট ফর স্পেস রিসার্চ (আইএনপিই) বলছে তাদের উপগ্রহ থেকে সংগৃহীত তথ্যে দেখা যাচ্ছে ২০১৮-র একই সময়ের তুলনায় এবছর আগুন লাগার ঘটনা ৮৫ শতাংশ বেড়েছে। সরকারি হিসাব বলছে এবছরের প্রথম আট মাসে ব্রাজিলের জঙ্গলে ৭৫ হাজার ৩০০টির বেশি দাবানল হয়েছে। ২০১৩ সালের পর এই সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

শুকনো মৌসুমে আমাজনের জঙ্গলে দাবানল নিয়মিত ঘটনা। সেখানে শুকনো সময়কাল জুলাই থেকে অক্টোবর পর্যন্ত। এই দাবানল তৈরি হতে পারে প্রাকৃতিক কারণে, যেমন বাজ পড়লে।

কিন্তু কৃষক এবং কাঠুরেরাও ফসল উৎপাদনের জন্য অথবা পশু চরানোর জন্য জমি পরিষ্কার করার কারণে জঙ্গলে আগুন দিয়ে থাকে। সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতি ব্রাজিলের উত্তরাঞ্চলে।

রোরাইমা, একার, রনডোনিয়া এবং আমাজোনাস্ সব এলাকাতেই গত চার বছরের (২০১৫-২০১৮) তুলনায় গড়ে আগুন লাগার ঘটনা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়ে গেছে।

এ দাবানলে ব্রাজিলের উত্তর অঞ্চল সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই দাবানলের কারণে ব্রাজিলের আমাজান রাজ্যে ইতোমেধ্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে।

আর দাবানলের প্রভাবে ব্রাজিলের বাতাসে এখন কার্বন মনো-অক্সাইডের পরিমান বেড়েছে ২০১০ সালের পর এবারই সবচেয়ে বেশি।

জি-সেভেন সম্মলনের শুরু হয়েছে শনিবার। দুই দিনব্যাপী এই সম্মেলনের এবারের প্রধান এজেন্ডা আমাজানের দাবানল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *