Monday, February 17, 2020
Home > জাতীয় সংবাদ > কাশ্মীর দখল এবং প্রতিবেশী দেশ গ্রাস করার ভারতীয় ষড়যন্ত্র রুঁখে দাড়াতে হবে – মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী

কাশ্মীর দখল এবং প্রতিবেশী দেশ গ্রাস করার ভারতীয় ষড়যন্ত্র রুঁখে দাড়াতে হবে – মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী

এপিপি বাংলা : বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের আমীর মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী বলেছেন, কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিলোপ করার মাধ্যমে শুধু ভারত নয়, গোটা উপমহাদেশকে অস্থিতিশীল করে তুলেছে। বাবরী মসজিদ ধ্বংষের হোতা ও গুজরাটের কসাই উগ্র মোদি সরকার ভারতীয় সংবিধান পরিবর্তন করে কাশ্মীরীদের অধিকার খর্ব করেছে। সেখানে ভারতীয় সেনাবাহিনীর বর্বর নির্যাতন ও নৃশংস গণহত্যা চলছে। কাশ্মীরকে দখল এবং মুসলিম শূন্য করে হিন্দুত্ববাদী রামরাজ্য কায়েমের ষড়যন্ত্র চলছে। যা কোন শান্তিকামী মানুষ মেনে নিতে পারে না। কাশ্মীরীদের রক্ষায় বিশ্ববাসিকে জোড়ালো ভুমিকা রেখে কাশ্মীরীদের স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে হবে। তিনি বলেন, ভারতের কাশ্মীর দখল এবং প্রতিবেশী দেশসমূহকে গ্রাস করার ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে বিশ্ববাসীকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে রুখে দাঁড়াতে হবে।
আজ ৩১আগষ্ট শনিবার বিকাল ৪ টায় বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটে কাশ্মীরে গণহত্যা ও নির্যাতন বন্ধ ও তাদের স্বাধীনতার দাবীতে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন। সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন, দলের মহাসচিব মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী, কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর ও ঢাকা মহানগরীর আমীর মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা আব্দুল মান্নান, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি সুলতান মহিউদ্দীন, আলহাজ্ব আতিকুর রহমান নান্নু মুন্সি, মাওলানা ফিরোজ আশরাফী, হাজী জালাল উদ্দিন বকুল, মাওলানা সাইফুল ইসলাম সুনামগঞ্জী, মুফতি মোর্শারফ হেসেন, মাওলানা মাহবুবুর রহমান,মাওলানা আখতারুজ্জামান সাদেকী, মাওলানা সাজেদুর রহমান ফয়েজী, জুনাঈদ আহমাদ কাটখালী, মুফতি ইলিয়াস মাদারীপুরী, মুফতি আ ফ ম আকরাম হুসাইন, মুফতি আব্দুর রহীম কাসেমী, মুফতি আলী হায়দার, মাওলানা শেখ সাদী,মাওলানা নুরুল্লাহ হাশেমী প্রমূখ।
মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী বলেন কাশ্মীর নিয়ে কোন যুদ্ধ দেখতে চাই না। অস্ত্রের জোরে কাশ্মীর মুসলমানদের স্বাধীনতা আন্দোলন স্তব্দ করা যাবে না। ভারতকে কাশ্মীরের শাসন ক্ষমতা তাদের হাতে ফিরিয়ে দিতে হবে।
মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী বলেন, ভারত সংবিধানের ৩৭০ ধারাই প্রমাণ করে কাশ্মীর ভারতের অধীনস্থ কোন রাজ্য নয়। এই ধারা বাতিলের অর্থ হচ্ছে পররাজ্য দখল ও আগ্রাসন। আজ কাশ্মীর দখল হলে কাল তারা প্রতিবেশী অন্য দেশ দখলের ষড়যন্ত্র করবে।
মুফতি সুলতান মহিউদ্দীন বলেন, রোহিঙ্গাদের মত কাশ্মীর ও আসামের লক্ষ লক্ষ নাগরিককে বিতাড়িত ও রাষ্ট্রহীন করার ষড়যন্ত্র করছে খুনি মোদী সরকার। যে কোন মূল্যে কাশ্মীর আজাদ করতে হবে। কাশ্মীরকে স্বাধীন রাষ্ট্র মেনে নেয়া না হলে ভারত ভেঙ্গে টুকরো টুকরো হয়ে যাবে।
আলহাজ্ব আতিকুর রহমান নান্নু মুন্সি বলেন, কাশ্মীর ইস্যু ভারতের অভ্যন্তরীন বিয়য় নয়, বরং এটি ফিলিস্তিনের মত একটি জাতীয় সমস্যা এবং বিশ্বশান্তি বিনষ্টের পায়তারা। মোদী সরকারের অধীনে ভারতে মুসলমানরা নিরাপদ নয়।
বক্তারা বলেন, সম্প্রতি বিজিপি ত্রিপুরায় ১১টি সমাবেশ করে পার্বত্য চট্টগ্রামকে ভারতের অংশ দাবী করেছে এবং তা দখলের হুমকি দিয়েছে। আসামের ৪০ লক্ষাধিক মুসলিম নাগরিকদেরকে বিদেশী (বাংলাদেশী) বলে তালিকা করেছে । তাদের নাগরিকত্ব ও ভোটাধিকার বতিল করা হয়েছে। সমাবেশ শেষে একটি বিশাল বিক্ষোব মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি পল্টন মোড় হয়ে নাইটএঙ্গেল গিয়ে শেষ হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *