Saturday, September 26, 2020
Home > আঞ্চলিক সংবাদ > ট্রেন দুর্ঘটনায় চালক, সহকারী চালকসহ ৩ জন বরখাস্ত

ট্রেন দুর্ঘটনায় চালক, সহকারী চালকসহ ৩ জন বরখাস্ত

মোঃ শামসুদ্দিন জুয়েল :  ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা অভিমুখী আন্তঃনগর মহানগর তূর্ণা নিশিথা ও আন্তঃনগর উদয়ন এক্সপ্রেস দুটি ট্রেনের মধ্যে সংঘর্ষে ১৬ জন নিহত হয়েছে।এ সংঘর্ষের ঘটনায় তূর্ণা নিশীথা এক্সপ্রেস ট্রেনের চালক, সহকারী চালকসহ তিনজনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) সকালে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন এ তথ্য জানান।

রেলমন্ত্রী জানান, ধারণা করা হচ্ছে তূর্ণা নিশীথার চালক সিগন্যাল অমান্য করার কারণেই এই দুর্ঘটনা হয়েছে। এজন্য তূর্ণা নিশীথার চালক ও সহকারী চালকসহ ৩ জনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ঘটনায় ৫টি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, সোমবার (১২ নভেম্বর) রাত পৌনে ৪টায় কসবা উপজেলার মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী তূর্ণা নিশীথা এক্সপ্রেসের সাথে সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেসের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এই ভয়াবহ দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও অনেকে।

এদিকে, কসবা উপজেলার মন্দভাগ এলাকায় ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনায় রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের বিভাগীয় কর্মকর্তা পর্যায়ে গঠিত কমিটিকে আগামী দুই দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

রেলের পূর্বাঞ্চলীয় বিভাগীয় পর্যায়ের গঠিত কমিটির আহ্বায়ক রেলওয়ের ডিটিও (চট্টগ্রাম) মো. নাসির উদ্দিনের নেতৃত্বে কমিটির সদস্যরা মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) থেকেই তদন্ত কাজ শুরু করেছেন।

কমিটির সদস্যরা হলেন- ডিএসটিই (চট্টগ্রাম) মো. জাহিদ আরেফিন তন্ময়, ডিইএন-১ (চট্টগ্রাম) মো. হামিদুর রহমান, ডিএমই/লোকো (চট্টগ্রাম) ফয়েজ আহম্মদ খান ও ডিএমও (চট্টগ্রাম) ফাতেমা বেগম।

অপরদিকে, রেলভবন ঢাকার কন্ট্রোল অর্ডার নং- টিটি/সিসি-৯০ অনুযায়ী বিভাগীয় প্রধান কর্মকর্তা পর্যায়ে গঠিত তদন্ত কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দেওয়া হয়নি। কমিটিকে যথাসম্ভব দ্রুত তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

এ কমিটিতে রয়েছেন আহ্বায়ক মো. মিজানুর রহমান সিএমই (পূর্ব), সদস্য মো. নাজমুল ইসলাম সিওপিএস (পূর্ব), মো. সুবক্তগীন সিই (পূর্ব) ও অসীম কুমার তালুকদার সিএসটিই (পূর্ব)।

রেল মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা শরিফুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

কসবায় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা অভিমুখী ‘তুর্ণা নিশীথা’র সঙ্গে সিলেট থেকে চট্টগ্রাম অভিমুখে যাত্রা করা ‘উদয়ন এক্সপ্রেস’ ট্রেনের সংঘর্ঘে শেষ খবর পর্যন্ত ১৬ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক।

সোমবার (১১ নভেম্বর) দিনগত রাত ৩টার দিকে উপজেলার মন্দবাগ এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন জানান, মারা যাওয়াদের মধ্যে নয়জন ঘটনাস্থলে, সদর হাসপাতালে তিনজন, কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তিনজন এবং কুমিল্লা সদর হাসপাতালে একজন মারা যান।

আখাউড়া রেলওয়ে থানা পুলিশের ওসি শ্যামল কান্তি দাস জানান, সিলেট থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রামগামী আন্তঃনগর উদয়ন এক্সপ্রেস ও চট্টগ্রামগামী আন্তঃনগর তূর্ণা নিশীথা এক্সপ্রেস মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনে আসামাত্রই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে দুই ট্রেনেরই কয়েকটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে যায়।

ঘটনাস্থলে ও হাসপাতালে নেয়ার পর এখন পর্যন্ত ১৬ জন মারা গেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। তবে দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া বগির নিচে আরও মরদেহ থাকতে পারে। উদ্ধারকাজ চলছে।

Like & Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *