Tuesday, October 4, 2022
Home > আইটি > আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে

আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে

এপিপি বাংলা : তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ শ্রমনির্ভর অর্থনীতি থেকে প্রযুক্তিনির্ভর এবং ধাপে ধাপে দেশকে মেধানির্ভর অর্থনীতিতে পরিণত করতে শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে।

প্রতিমন্ত্রী আজ নারায়ণগঞ্জের জালকুড়িতে শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন প্রাচ্যের ড্যান্ডি হিসেবে খ্যাত নারায়ণগঞ্জ তরুণদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত , প্রযুক্তি শিক্ষায় দক্ষ করে তুলতে ভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ ও ভবিষ্যৎ কর্মসংস্থানের জন্য নতুন নতুন প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করা দরকার।
তিনি বলেন এই এলাকার তরুণদের প্রযুক্তিনির্ভর জনশক্তি হিসেবে গড়ে তুলতেই আইসিটি বিভাগ আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার প্রতিষ্ঠা করছে। প্রায় ১০০কোটি টাকা ব্যয়ে ১০ তলা বিশিষ্ট এ প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতিবছর ২০০০ শিক্ষার্থী প্রযুক্তি বিষয় শিক্ষার সুযোগ পাবে।

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকর্ণ কুমার ঘোষ, বাংলাদেশ ডিজেল প্ল্যান্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ মো. রফিকুল ইসলাম, শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপন (১১ জেলা) প্রকল্পের পরিচালক একেএম আব্দুল্লাহ খান, নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. মঞ্জুরুল হাফিজ এবং পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলমসহ বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ এবং স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তাগণ।

তিনি আরো বলেন প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা এবং প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের সার্বিক তত্ত্বাবধানে গবেষণা ও উন্নয়নের জন্য বিশ্বমানের পরিবেশ এবং ভবিষ্যতের জন্য টেকনোদক্ষ মানবসম্পদ তৈরি করার লক্ষ্যে দেশের ৬৪ জেলায় শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে আইসিটি বিভাগ।

প্রতিমন্ত্রী লার্নিং এন্ড আর্নিং ডেভেলপমেন্ট প্রকল্পের আওতায় নারায়ণগঞ্জ জেলায় প্রশিক্ষণ প্রাপ্তদের মধ্যে প্রতি ব্যাপের সর্বোচ্চ উপার্জনকারী ২ জন করে মোট ২০ জন ফ্রিল্যান্সারকে ল্যাপটপ প্রদান করেন।
এর আগে প্রতিমন্ত্রী শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টারের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন।

উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জ ছাড়াও এই প্রকল্পের আওতায় আরো ১০টি জেলায় (মানিকগঞ্জ, ভোলা, জয়পুরহাট, কিশোরগঞ্জ, কুষ্টিয়া, বান্দরবান, সিরাজগঞ্জ, চাঁদপুর, দিনাজপুর ও মেহেরপুর) শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপন করা হচ্ছে। বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে এবং বাংলাদেশ সেনাবহিনীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে ১১টি জেলায় প্রায় ৭৯৯ কোটি টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে।

 

Like & Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *