Wednesday, August 4, 2021
Home > আন্তর্জাতিক > মমতাকে ৫ লাখ রুপি জরিমানা! আলোচনা সমালোচনার ঝড়

মমতাকে ৫ লাখ রুপি জরিমানা! আলোচনা সমালোচনার ঝড়

এপিপি বাংলা : নন্দীগ্রামে নির্বাচন নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর মমতা ব্যানার্জির করা এক মামলায় তাকেই জরিমানা করেছেন বিচারপতি।  ৫ লাখ রুপি জরিমানা করে এই মামলা থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন বিচারপতি কৌশিক চন্দ। এটিই আজ পশ্চিমবঙ্গসহ গোটা ভারতবর্ষে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে।

হিন্দুস্তান টাইমসের খবরে বলা হয়, আইনজীবী থাকাকালীন বিজেপির হয়ে একাধিক মামলা লড়েছিলেন বিচারপতি কৌশিক চন্দ।  সেই কৌশিক চন্দের বেঞ্চেই নন্দীগ্রাম বিধানসভায় বিজেপির প্রার্থীর বিরুদ্ধে মমতার করা মামলাটি শুনানির জন্য যায়।  যা নিয়ে তৃণমূলের পক্ষ থেকে প্রবল আপত্তি জানানো হয়।  বলা হয় বিচারপতি চন্দ এই মামলার শুনানি করলে সেখানে নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন থেকে যাবে।  কারণ বাদী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিপক্ষে যিনি রয়েছেন, সেই শুভেন্দু অধিকারী বিজেপি নেতা।  এমনকি বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের সঙ্গে একটি ছবি পোস্ট করে এ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদক কুণাল ঘোষ।

যার পরই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তার আইনজীবী সঞ্জয় বসুর মাধ্যমে বিচারপতি কৌশিক চন্দকে এ মামলা থেকে সরে যেতে আবেদন করেছিলেন। এই আবেদনের প্রেক্ষিতে একজন বিচারপতির নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয় বলে জানান বিচারপতি কৌশিক চন্দ।  আর তাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা করেছেন তিনি।

আনন্দবাজারের খবরে বলা হয়েছে, বিচারব্যবস্থাকে কলুষিত করার জন্য মমতাকে এ জরিমানা করা হয়েছে বলে বিচারপতি জানান। ওই জরিমানার অর্থ জমা দিতে হবে রাজ্য বার কাউন্সিলে, যা পরবর্তীকালে কোভিড চিকিৎসায় ব্যবহৃত হবে।  এবার এ মামলা কোন বেঞ্চে যাবে, ‘মাস্টার অব রোস্টার’ হিসেবে তা ঠিক করবেন হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দল।

মামলার রায় দিতে গিয়ে বিচারপতি চন্দ স্পষ্ট জানান, তার বিরুদ্ধে মামলাকারীর পক্ষ থেকে যে অভিযোগ তোলা হয়েছে, তার জন্য তিনি সরছেন না। বরং বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক তৈরি হওয়ার কারণেই তিনি সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

চলতি বছর পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের আগেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন শুভেন্দু অধিকারী। তার পর থেকেই নন্দীগ্রাম আসনটি নিয়ে অনেক বেশি হইচই শুরু হয়। ওই কেন্দ্র থেকে নিজেই ভোটে লড়বেন বলে জানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । বিজেপির পক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন শুভেন্দু অধিকারী। হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর গত ২ মে ভোটের ফলপ্রকাশের পর দেখা যায় শুভেন্দু অধিকারী ওই আসনে জিতে যান।  তবে প্রভাব খাটিয়ে ওই ফল এসেছে বলে অভিযোগ তৃণমূলের। এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে তৃণমূলের পক্ষ থেকে মামলা করা হয়।

Like & Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *